Tuesday, August 27, 2019

আবদুস সালাম এর কবিতা

আবদুস সালাম এর কবিতা


উৎসব  //  আবদুস সালাম

ডালপালাহীন আদুল গাছে কাকেদের উল্লাস
বিকেলরঙের আড়ষ্ট প্রেম উঁকি মারে দরজায়
ছাইবর্ণ হৃদয় খুঁজে উৎসব
           বেলা বয়ে যায়
রাতপাখিরা ডেকে ডেকে ফিরে যায়
সজন কথা কয় না
উৎসব শেষে বেড়া ভাঙলে
                নষ্ট চাঁদ উঁকি মারে
নষ্ট উৎসবের স্বপ্ন কড়া নাড়ে
নরকের শকুনি ডানা ঝাড়ে
রাতের সমাজে দীর্ঘশ্বাস গড়াগড়ি খায়
              অন্ধকার নিভৃতে আল্পনা আঁকে
বিপর্যয় ডানা মেলে ভালোবাসার পাড়ায়
নিসর্গের হাত ধরে পাখি যায় অস্তাচলে
উন্মাদ স্বান্তনা ধুয়ে যায় অসহ্য জলাশয়ে
                  নিঃশব্দ উৎসব চৌকাট পেরোয়
সফলতা অন্ধকার রাস্তায় আলো জ্বালে
নষ্ট চাঁদ উঁকি মারে ফাগুনের বনে
বিভ্রান্ত ঈশ্বরী খুঁজে চলে সত‍্যের বিষ্ময়
         তবু মহুয়া পলাশের বনে বসন্ত আসে
3 1 2019



ভাটা  //      আবদুস সালাম

ভাঙা জোছনায় অবসাদ পাড়ি জমায়
প্রতিক্ষা ঝুলে আছে কার্নিশে
আজ  ফাগুন শেষ
চৈত্র কড়া নাড়ছে দুয়ারে
আকাঙ্ক্ষারা মোহনায় হয়ে গেছে সুট্কী
নীল জলের আসরে বাজছে সাইরেন
ভাটার জল মিশছে লোনা জলে
বিনম্র সোচ্চার ডানা মেলছিলো সেদিন
বিন্দুসার বারবার মৃত্যু দন্ড দিচ্ছিলো চানক‍্য কে
অমোঘ অনুশাসন  তখন কড়া নাড়ছিল দুয়ারে
প্রাচীন চাঁদ ডুবে যাচ্ছে  মায়াবী আলোয় রাত ঢলে পড়ছে মৃত্যুর আসরে
8/2/2019





  কষ্ট কথা  //  আবদুস সালাম

অপমানব ঘেরা আধপোড়া বারান্দায় আমাদের বসত
সবাই ব‍্যস্ত সাপলুডু খেলায়
প্রেমিক প্রেমিকার সামনে বিষন্ন পথ
পাখিরা মেলে ধরছে কষ্ট কথা
তর্কযুদ্ধের আসরে দায়িত্বহীন উষ্ণতা ডানা মেলে
ঝরে পড়ে প্রেমের রক্তরেণু
বেজন্মা আকাশে পাড়ি জমায় দীর্ঘশ্বাস
ঝাঁপি খুলে দেখি পৃথিবী  সাজিয়ে রেখেছে অদ্ভুত রঙের অস্তিত্ব
ধর্মপোকারা দায়িত্বহীন যুদ্ধে ব‍্যস্ত
রাতের কোটরে  জড়ো হয় পান্ডিত‍্য
ব‍্যথাযুবতীরা সাজায় বিরহের ডুমুর ফুল
আধপোড়া বারান্দায় চাঁদ ডুবে যায় বিষন্ন অভিমানে





  তারা খসা  //    আবদুস সালাম


আকাশ রঙের সংসার পেতেছি রাস্তায়
বিচ্ছিন্ন একক,সন‍্যাসী সংসার
বিপন্নতার শরবত খেয়ে বেঁচে আছি

সুখের ঘুঙুর বেজে চলে আনমনে
ফনিমনষার ঝোপে এলোপাথাড়ি অবসর
মনে পড়ে শচীন বাবুর গান ( আজ কেন ভালোবাসোনি)

বুকের পাঁজর ভেঙে শূন্যতা বাসা বাঁধে
 অভিমানে তারারা খসে পড়ে
বিনিদ্র অপেক্ষারা আত্মগ্লানীর বাজনা শোনায়

বৈধতার ওপারে ব্রহ্মলোক,মহাকাশ
অতিশূন‍্যতায় পাড়ি জমায়
ধুয়ে ফ‍্যালে নিজস্বতা,মিশে যায় তারাখসাদের দলে

দেখে নিও একদিন এভাবেই হারিয়ে যাবো তারাদের মতো ,ছায়াদের দেশে




পূর্ব রাগ  //    আবদুস সালাম

  পলাশ রঙের সন্ধ্যা চুমু খাচ্ছে নির্জনে
নিরুত্তাপ ফণায় জেগে উঠছে উদ্ভাস

সন্ধীতৃষ্ণা মাথা নত করে অশ্বগন্ধার কাছে
আত্মপীড়িতের বিচ্ছিন্ন লীলা ক্রমাগত পেখম মেলে
অনাবিল সুখের পূর্ব রাগে ঢলাঢলি বিখ‍্যান

আত্মপরিচয়হীন সংসারে পুঁতে দিলাম পতাকা
রঙের উৎসবে সবাই আজ মাতোয়ারা 



 মহড়া  //    আবদুস সালাম

 রাতদিনের বোঝাপড়া হয় গোধূলীর আসরে
ধূলোধূলো গন্ধে নির্জীব শুভেচ্ছা
একই ছাদের নীচে চুঁইয়ে পড়ে নৈঃশব্দ

অবুঝ নির্জনতা গোনে রাতের শব্দ 
সম্পর্কের টানাপোড়েন চলে ভাবনার
 পেঁচাদের ডাকে ফিরে আসে সম্বিৎ

রূপকথারা রান্না করে বিষাদ
ওরা জানেনা অব‍্যক্তের মানে
সংশয় মেখে ভালোবাসা শ‍্যালাড হয়ে যায়

বিপন্নতার নদী বয়ে যায় অর্বাচীন নগরে
ভাসানের দীর্ঘশ্বাস ফ‍্যালে ছায়াহীন সন্ধ্যা
বৈধব‍্য ডুবে যায় অপেক্ষার নীলে

উৎপীড়ন জমা থাকে সম্পর্কের উঠোনে
বেদনাবোধের নির্মাণ পঠিত হয় দহনের পাঠশালায়
গোধূলির রঙ মেখে সম্পর্ক জোড়া লাগে নৈঃশব্দের  উঠোনে

 ভালোবাসার উঠোন জুড়ে বন্দী হয় প্রেম
বৈধ‍ব‍্যের গীটারে বাজে উৎপীড়নের গান
সম্পর্কের প্রলয় নামে নির্জন বধ‍্যভূমিতে