বাংলা ভাষার ই-ম্যাগাজিন । যে কোনো সময় লেখা পাঠানো যায় । ই-মেলে লেখা পাঠাতে হয় ।

Monday, January 21, 2019

লাস্ট বেঞ্চের ছাত্র // অশোক মহন্ত

 অশোক মহন্ত


পেছন বেঞ্চে বসেছে পিকলু,, 
আড়াল থেকেই উঁকি দিলো,,
মাস্টারমশাই,মাস্টারমশাই,
আমার একখান প্রশ্ন ছিল,,!

হাঁকিয়ে উঠলো নরেন বাবু,কিরে,
পড়া করেছিস,হাতের লেখা কোই,?
তা ঘটে আছে যে গোবর ভর্তি,,
গুলে খেয়েছিস তো পড়ার বই,,!

ঘর জুড়ে সব হেসে উঠলো,,
দাঁত কেলিয়ে পিকলুও হাসে,,
মাস্টারমশাই বললো রেগে,,
গাধা তিন বছর ধরে ওই একই ক্লাসে,,!

তা প্রশ্নখানা বল তো শুনি,,
হয়েছিস তো খুব বিদ্যবান,, 
কত গরু দেখেছি মাঠে,,
একটাও দেখিনি তোর সমান,,!



উঠে দাঁড়ালো পিকলু বাবু,,
হাবভাব যেন তিনি পন্ডিতমশাই,,
গলা উঁচিয়ে প্রশ্ন করলো,স্যার,
একের পরে কেন শুন্য বসাই,,?

চোখ রাঙিয়ে ডাকলো কাছে,,
অসার মাথা হ্যাংলা দেহ,, 
কত গর্দভ দেখেছি হেথা,,
তোর মতো আর নাইকো কেহ,,!

তুই ধোপার ছেলে ধোপাই হবি,,
হবে নাকো আর কোনো গতি,,
গাধা পিটিয়ে মানুষ হয়না,,
সব পাথরই যে হয়না মতি,,!

হোলো নাকো আর লেখাপড়া,,
পিকলু এখন ধোপাই বটে,,
হাসিমুখেই জীবন কাটায়,, 
কাপড় কাচে পুকুর ঘাটে,,!

সময় পেরোলো বছর কুড়ি,,
পিকলু সেই একই রয়েছে,,
মাস্টারমশাই অবসর নিলো,,
বন্ধুরা সব বাবু হয়েছে,,!

থানায় গিয়েই পড়লো চোখে,,
একি বড়োবাবু যে তারই ছাত্র,,
ঘুষ আর বেশি হোলোনা দিতে,,
অনেক বলে পাঁচশো মাত্র,,!

উকিলবাবু কেস লড়ছেন,,
ছেলেটি তার হাজত বাস,,
শিক্ষকমশাই বসে ভাবছেন,,
ফার্স্টবয় আজ টাকার দাস,,!

অসুস্থ তিনি হয়ে পড়লেন,, 
ডাক্তারের ফিজ হাজার মাত্র,, 
চিনতে পেরে ভেবেই অবাক,, 
ডাক্তারবাবুও তো তারই ছাত্র,,!

খবর পেয়েই দৌড়ে আসলো,,
একটা চিঠি লিখেই,দিলো রক্ত,,
সংজ্ঞা ফিরতেই পড়লো চোখে,,
স্যার,পিকলু অপনার পরম ভক্ত,,!

চোখের জল মুছে নিয়ে,,
দীর্ঘস্বাস ফেললো খানিক,,
সব মতিই যে হয়না দামি,,
পিকলু রে তুই হিরে মানিক,,!!

No comments:

Post a Comment