Saturday, October 20, 2018

চিঠি : রাকিবুল ইসলাম



প্রিয়
তোমার প্রেমের বিরহে এ অধমের কোমল হৃদয়ে যে ক্ষত-বিক্ষত অনুগ্রহ করে তাতে সান্ত্বনার শীতল পরশ বুলাতে এসো না প্রিয়। 
আমি চোখে তোমার প্রেমের সুরমা একবার যে মেখেছি স্বর্গ-মর্তের সকল সৌন্দর্যের মোহ থেকে আমার চিরমুক্তি ঘটেছে,,
তোমার ভালোবাসার ছোঁয়া লাভের আশায়
দুয়ারে তোমার হাত পেতেছি আমি ভিখারির মত।
দোহাই তোমার প্রেমের...!
বাঞ্চনার দহনে আর দগ্ধ করোনা এ অভাগাকে,
তৃষ্ণার্ত হৃদয়ের আকুতি শোনো...
তোমার জন্যে যে সাজিয়েছি আমার এ হৃদয় সিংহাসন,
তুমি যে আমার প্রেমাস্পদ,
আমি যে তোমার ভালোবাসার কৃতার্থ দাস,
ভিখারিকে ঠেলে দিওনা ভগ্ন হৃদয়ে ভালোবাসার দুয়ার থেকে।
তোমার শুন্যতা গভীর ভাবে অনুভব করি,
নির্জন রজনীতে যখন রাতের তারাভরা আসমানে ব্যথাতুর দৃষ্টিতে তাকাই; হৃদয়ের গভীরে তোমার শুন্যতা আমার কলিজায় আঘাত হানে।
কত বিরহের স্বাক্ষী জমা আছে ঐ দুরের চাঁদ তারার কাছে... তুমি হয়তো আমার চোখের নোনাজলে ভেজা গন্ডদেশ দেখোনি,
আমার হৃদয়ের মর্মস্পর্শী ভাষা শুনোনি,
অবলোকন করোনি আমার করুন অবস্থা,
তা হয়তো আমি প্রকাশ করার যথাশব্দ ভাষা খুঁজেও পাবোনা,, বা সে ভাষা হয়তো আজো তৈরী হয়নি,
কি করে বুঝোবো যে কতটা ভালোবাসি তোমায়! 
তুমি না হয় ভালো থাকবে তোমার সুখে থাকাকে নিয়ে,
আর আমি না হয় ভালো থাকবো
তোমার ভালো থাকাকে নিয়ে,,
তুমি যে দু দিন পাশে ছিলে সে দু দিন  তোমাকে দেখে মন রাজ্যে শীতল প্রলেপ পড়েছিল।
কেমন মায়া ভরা চাহনি,
সারা মুখে কী অপূর্ব দীপ্তি,, চাঁদ মুখে কেমন জোছনার হাসি।
দেখতেই ইচ্ছে করে তবু যেন আশা মিটেনা..!
জরিয়ে ধরে আগলে রাখতে ইচ্ছে করে  বারবার তবুু ও তা যে পরি না।
বুকের পুঞ্জিভূত আনন্দের বারিধারায় যেন দুলতে থাকে, হৃদয়ের গভীরে যে তোমার বিচ্ছেদের শুন্যতা অনুভব করেছি তাতে যেন সান্ত্বনার শীতল প্রলেপ পড়ে, দুঃখের শুকনো ডালে সুখের কলি যেন হেসে উঠে, মনের প্রতিটি কোনে যেন তোমার চাহনীর দীপশিখা আলো ছড়াতে থাকে, ব্যথার অশ্রু ঝাপসা চোখের আলো যেন আবার ফিরে আসে, ।
আমার বিবর্ন- বিষন্ন মুখমন্ডলে দুঃখের ছাঁয়া মুছে সুখের আভা ছড়িয়ে দাও,
তুমি পাশে থাকলে দিনটা কাটে আনন্দের
আর রাতটা কাটে প্রশান্তির,
তোমাকে যেন তৃষ্ণার্ত চোখে বারবার দেখতে ইচ্ছে করে, আর যত দেখি ততই যেন তৃষ্ণা বাড়ে।
তোমার চোখের অবাক চাহনি আমার হৃদয়ে কত সাধ জাগায়...!যদিও খুব কম দেখা হয়েছে  তোমার আমার।
ইচ্ছে হয় তোমার তরে এ প্রান উৎসর্গ করি,
বুক উজার করে সব মমতা ঢেলে দেই।
প্রিয়,
সুখের দিনগুলো তাড়াতাড়ি চলে যায়
তা সাহিত্যের পাতায় পড়েছিলাম,
কিন্তু জীবনের পাতায় কখনো পড়া হয়নি।
তোমার বিদায় লগ্ন যখন ঘনিয়ে আসে
তুমি আমায় একা রেখে চলে যাও
দিন ও রাত বয়ে চলে দুঃখের ভেলায়
অশ্রুর নোনা দরিয়ায়,
মুখে হাসি নেই শুধু বিষাদের ছাঁয়া,
তুমি পাশে নেই শুধু বেদনার নিরবতা,
আমায় রেখে তুমি চলে যাওয়ার দৃশ্যটা যে কত বেদনাদায়ক...কতটা যন্ত্রনাদায়ক...
তোমার নিঃস্বঙ্গতা যে কত কষ্টদায়ক...!
তা যদি তুমি বুঝতে তাহলে কখনো চলে যেতেনা আমাকে একাকী করে।
তুমি ছাড়া কে আমায় সান্ত্বনা দেবে!
কে মনোরঞ্জন পূরন করবে!!
তখন চোখের নোনা জলই আমার সম্বল,
অশ্রুসজল চোখে তৃষ্ণার্ত দৃস্টিতে তোমার চলে যাওয়ার পথে চেয়ে থাকা বেদনার যন্ত্রনার তীব্রতায় সে দৃষ্টিও এক সময় ঝাপসা হয়ে যায়,
হৃদয়ের স্পন্দন,
ভালোবাসার প্রিয়তমা ধিরে ধিরেে   
বহুদুরে হারিয়ে যায়.....
অষর হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ছাড়া আর কিছুই করার থাকেনা।
ক্ষনিকের জন্য চোখের আড়াল হলেই আমার নিঃস্বাস বন্ধ হয়ে যায়,, তাহলে একবার ভেবে দেখো...
সারাটি জীবন তুমিহীনা এই আমি
কি করে বেঁচে থাকবো...!!
অনেক বেশিই ভালোবাসি তোমায় প্রিয় ।
_______________ইতি__________
তোমার কোন এক সময়ের প্রিয় মানুষ  
রাকিবুল  ইসলাম